www.durbinnews.com::জানি এবং জানাই

জাতীয় আয় চলে যাচ্ছে ৫ ভাগ মানুষের হাতে



 দূরবীন ডেস্ক    ২৬ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার, ২:০৯   খবরের বাইরে বিভাগ


অর্থনীতিবিদ ইব্রাহিম খালেদ। মুক্তিযুদ্ধের চেতনার পক্ষে এক বলিষ্ঠ কণ্ঠস্বর। সমাজে নানা বৈশম্য আর অনিয়মের বিরুদ্ধে সরব তিনি। শেয়ারবাজারে কারসাজির পেছনে দায়ীদের চিহ্নিত করেছিলেন অত্যন্ত সাহসিকতার সঙ্গে। যদিও দোষী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে শেষ পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। সম্প্রতি ইত্তেফাককে দেয়া এক সাক্ষাতকারে আয় বৈষম্যের সমালোচনা করেছেন অর্থনীতিবিদ ও বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ। তিনি বলেছেন, বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি খুবই আকর্ষণীয়। ৭ শতাংশের ওপরে। তবে এরবণ্টন ব্যবস্থা ভালো না। দেশের সম্পদ এখন মাত্র ৫ শতাংশ মানুষের হাতে পুঞ্জিভূত। যে কারণে উন্নয়ন সুফল থেকে বাকি ৯৫ শতাংশ মানুষ বঞ্চিত হচ্ছে। দেশের শতকরা ৫ ভাগ লোক ভালো আছে, এর মানে দেশ ভালো আছে এটা কখনোই বলা যায় না। এটা দেশের জন্য ভালো নয়। এটা দেশের সংবিধানের সঙ্গেও সঙ্গতিপূর্ণ নয়।
ইব্রাহিম খালেদ বলেন, দেশের অর্থনীতির প্রধান দুটি খাতের একটি ব্যাংক অন্যটি শেয়ারবাজার। এ দুই খাতই বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত। ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণ বেড়েই চলছে। নতুন নতুন নীতিমালা আসছে। এসব নীতিমালার বাস্তবায়ন হলে ব্যাংকিং খাতে বিপর্যয় নেমে আসবে। অন্যদিকে, শেয়ারবাজারের দুষ্টু চক্রের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। দীর্ঘদিন ধরে তারা বহাল তবিয়তে শেয়ারবাজারে প্রভাব বিস্তার করে আসছে। ঢাকার আরেকটি দৈনিককে দেয়া সাক্ষাতকারে ইব্রাহিম খালেদ বলেন, বর্তমানে দেশে আয় বৈষম্য বেড়েই চলেছে। এটা বাড়তে থাকায় দেশের ধন-সম্পদ ৫ শতাংশ লোকের হাতে আটকা পড়েছে। তারাই দেশকে পরিচালিত করছে। ফলে দেশের উন্নয়ন সুফল থেকে বাকি ৯৫ শতাংশ মানুষ বঞ্চিত হচ্ছে। এরআগে ইংরেজি দৈনিক ডেইলি স্টারকে দেয়া আরেকটি সাক্ষাতকারে ইব্রাহিম খালেদ বলেন, উন্নয়ন তো হচ্ছে। যে প্রবৃদ্ধির কথা সরকার বলে সেটি তো হচ্ছে। কিন্তু, এই জিডিপি থেকে যে টাকা আসছে তার সুষম বণ্টন হচ্ছে না। যে জাতীয় আয় যোগ হচ্ছে সেটি মাত্র শতকরা পাঁচ ভাগ মানুষের হাতে আসছে। সেই পাঁচভাগ মানুষ প্রত্যেক বছর আরও বড়লোক হচ্ছেন। বাকি ৯৫ শতাংশ তাদের কাছে আসছে না। উপর থেকে অর্থ নীচের দিকে যাচ্ছে না। ইব্রাহিম খালেদ বলেন, নরওয়ে, ডেনমার্ক, সুইডেন, সুইজারল্যান্ড হলো সুষম বণ্টনের দেশ। সবচেয়ে অসম বণ্টনের দেশ হলো আমেরিকা। আমরা আমেরিকার মডেল অনুসরণ করছি। এখন স্বাভাবিকভাবেই গরিব আরও গরিব হচ্ছে।

 




 এ বিভাগের অন্যান্য


ইতালিতে বাংলাদেশির সততার দৃষ্টান্ত


বিনা খরচে যেভাবে জাপান যাওয়া যাবে


ভারতীয় মন্ত্রীরা যেভাবে বদলে দিচ্ছেন বিজ্ঞানের ইতিহাস


সব সময় ইতিবাচক থাকার কয়েকটি উপায়


শাড়ি ও নারী নিয়ে লিখে সমালোচনার মুখে আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ


মন্ত্রিত্ব-পুরস্কার ফিরিয়ে দেয়া কুঁড়েঘরের মোজাফফর


ভারতীয় হিসেবে গর্বিত নন অমর্ত্য সেন


একজন সুলতান সুলাইমান


সালমান-লোহানকে নিয়ে গুঞ্জন


সাহস মানে ভয়কে জয় করা


জাতীয় আয় চলে যাচ্ছে ৫ ভাগ মানুষের হাতে


একজন আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ


ভাইগো ও ভাই, আমি এখানে এসেছিলাম আমার বাচ্চাকে স্কুলে ভর্তি করাতে


মার্কিন দূতাবাস জেনেশুনেই প্রিয়া সাহাকে বাছাই করেছে, সেনা অভিযানের ক্ষেত্র প্রস্তুত করার জন্যই এমন কাজ


বাংলাদেশে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারিদের ২৫ শতাংশ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের





All rights reserved www.durbinnews.com